নিউজনেক্সটবিডি ডটকম আর্কাইভ
মান্না স্মরণে পরিচালক মনতাজুর রহমান
December 24th, 2015 Author On বিনোদন, লিডনিউজ
মান্না স্মরণে পরিচালক মনতাজুর রহমান

আইরিন রবি, ঢাকা: এস এম আসলাম তালুকদার যিনি রুপালী জগতে পদার্পন করেন ‘মান্না’ নাম দিয়ে। ২০০টির বেশি ছবিতে অভিনয়ের মাধ্যমে দর্শকের মনে জায়গা করে নিয়েছেন এই অভিনেতা। তার সবকটি চলচ্চিত্রের মধ্যে ‘আম্মাজান’ সর্বাধিক ব্যবসাসফল ও জনপ্রিয়।   

প্রখ্যাত পরিচালক মনতাজুর রহমান আকবরের সঙ্গে ২৬টি চলচ্চিত্রে কাজ করেছেন অভিনেতা মান্না। ছবির মাধ্যমেই ঘনিষ্ঠ সম্পর্ক গড়ে ওঠে তাদের দুজনের মাঝে। যার কারণে ২০০৮ সালে মান্নার মৃত্যর পর মনতাজুর রহমানকে দেখা গেছে দীর্ঘ বিরতীতে।

বর্ণাঢ্য আয়োজনে নুতন বছরের ১ জানুয়ারি অনুষ্ঠিত হতে যাচ্ছে ‘মান্না উৎসব’। এতে দেশের ৭ জন গুণী চলচ্চিত্র অভিনয় শিল্পীকে প্রদান করা হবে মান্না স্মৃতি পদক। এ বিষয়ে মনতাজুর রহমান বলেন, কিছুক্ষণ আগেই ফোনের মাধ্যমে অনুষ্ঠানের বিষয়টি জানতে পেরেছি। তবে এই বিষয়ে আমার আগে থেকে কিছুই জানা ছিল না। অনুষ্ঠানে অন্যান্য সংস্কৃতি শিল্পীদের সঙ্গে আমিও অতিথি হিসেবে উপস্থিত থাকবো।

image_90182-02-newsnextbdএকই সাথে এই পরিচালক মান্নার বিষয়ে স্মৃতিচারণ করে বললেন নানান জানা-অজানা ঘটনা। তিনি বলেন, ‘নায়ক মান্নার সঙ্গে আমার প্রথম দেখা হয় এফডিসি’তে। এসময় তার সাথে কথা বলে তার ব্যবহার আমাকে আকৃষ্ট করে। এরপরেই তার সাথে আমি ‘প্রেম দিওয়ানা’ ছবি করার সিদ্ধান্ত নেই। এটিই মান্নার সঙ্গে আমার প্রথম ছবি।’

‘মান্না ছিলেন একজন ভাল মনের মানুষ। দেশের প্রধান নায়ক হয়েও খুব সাধারণভাবেই থাকতেন তিনি। সাধারণ মানুষের মতই আচরণ করতেন সবার সঙ্গে, আর এই করণেই আমার পরবর্তী ছবিগুলোতে আমি মান্নাকে নিয়ে কাজ কারার সিদ্ধান্ত নেই’ বলেও যোগ করেন তিনি।

মনতাজুর বলেন, ‘১৯৯৯ সালে একটি ছবির শুটিং-এর জন্য মন্না ও অভিনেত্রী চম্পাসহ কয়েকজনকে ব্যাংকক যেতে হয়। সেসময় আমাদের সাথে কোনো স্পট বয় ছিল না। তাই হোটেল থেকে শুটিং স্পট পর্যন্ত অভিনয়ের সব সরঞ্জাম আমাদেরই নিয়ে যেতে হয়েছে। যতদিন সেখানে শুটিং হয়েছে প্রতিদিন ক্যামেরার স্ট্যানটি মান্নাই স্পটে নিয়ে যেতেন। আর চম্পার হাতে থাকতো ক্যামেরা’।

মনতাজুর রহমান আরো বলেন, ‘মান্নার মৃত্যুতে চলচ্চিত্র জগতে একটি শূন্যস্থানের তৈরি হয়েছে। কারণ আমি মনে করি, মান্নার অভিনয়ের দক্ষতা ছিল সৃষ্টিকর্তা প্রদত্ত। অভিনয়ের মাধ্যমে দর্শকের মনে খুব সহজেই জায়গা করে নেয়ার গুন তার মধ্যে ছিল’।

‘মান্না ছিলেন প্রতিবাদী একজন। নব্বই দশকে অশ্লীল চলচ্চিত্র নির্মাণের ধারা শুরু হলে যে কজন প্রথমেই এর প্রতিবাদ করেছিলেন, তাদের মধ্যে মান্না ছিলেন অন্যতম। রীতিমতো যুদ্ধ করেছেন অশ্লীল চলচ্চিত্রের বিরুদ্ধে। আর এতে নায়ক সফলও হয়েছেন’, বলে জানান তিনি।

পরিচালক মনতাজুর রহমান আকবর বর্তমানে ‘মাই ডার্লিং’ ছবির কাজে ব্যস্ত রয়েছেন। এ বিষয়ে তিনি বলেন, ‘৭/৮ মাস আগেই শুর হয়েছে ছবিটির কাজ। এতে জুটিবদ্ধ হয়ে কাজ করছেন শাকিব খান ও অপু বিশ্বাস। দেশের বিভিন্ন দৃশ্যেই চলছে ‘মাই ডার্লিং’ ছবির কাজ। নতুন বছরের মার্চে এর কাজ শেষ করতে পারবো বলে আশা করছি।’

নিউজনেক্সটবিডি ডটকম/আইকে/আতে